Home > featured > রায়গঞ্জ প্রস্তুত চতুর্মুখী লড়াইয়ে, সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার সেলিম-দীপার সমর্থনে

রায়গঞ্জ প্রস্তুত চতুর্মুখী লড়াইয়ে, সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার সেলিম-দীপার সমর্থনে

 

NBlive রায়গঞ্জঃ বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী হিসেবে মহম্মদ সেলিমের নাম ঘোষণার পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় দীপা দাসমুন্সির সমর্থনে প্রচার শুরু করে দিল কংগ্রেসের আইটি সেল। ‘ জোট হলেও দীপা বৌদি, জোট না হলেও দীপা বৌদি’ ক্যাপসন দিয়ে প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সী ও দীপা দাসমুন্সীর ছবি আপলোড করে প্রচার শুরু করল উত্তর দিনাজপুর জেলা কংগ্রেস। সোশ্যাল মিডিয়ার প্রচারে পিছিয়ে নেই সিপিআইএমও। শুক্রবার দিনই ‘ বিজেপি হটাও দেশ বাঁচাও, তৃণমূল হাটাও বাংলা বাঁচাও’ স্লোগান তুলে মহম্মদ সেলিমের সমর্থনে প্রচার শুরু করেছে উত্তর দিনাজপুর জেলা সিপিআইএমের আইটি সেল। ফলে উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ লোকসভা আসন যে চতুর্মুখী লড়াইয়ের জন্যই প্রস্তুত হচ্ছে সেই বিষয়টি এখন কার্যত পরিষ্কার।

জেলা কংগ্রেস নেতা পবিত্র চন্দও এদিন চতুর্মুখী লড়াইয়ে তাঁরা প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন। এদিকে সিপিআইএমের জেলা সম্পাদক অপূর্ব পাল বিষয়টিকে দুর্ভাগ্যজনক হিসেবেই দেখছেন।

২০১৪ লোকসভা ভোটেও রায়গঞ্জ লোকসভা আসনে চতুর্মুখী লড়াই হয়েছিল। সেই সময় বাম প্রার্থী মহম্মদ সেলিমের ঝুলিতে গিয়েছিল প্রায় ৩১৭৫১৫টি ভোট। দ্বিতীয় স্থানে থাকা প্রিয় জায়া দীপা দাসমুন্সী পেয়েছিলেন ৩১৫৮৮১টি ভোট। ফলে মাত্র ১৬৩৪ ভোটে কংগ্রেস প্রার্থী দীপা দাসমুন্সীকে হারিয়ে সাংসদ হয়েছিলেন মহম্মদ সেলিম। এদিকে ২০৩১৩১টি ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থানে ছিলেন বিজেপির তারকা প্রার্থী নিমু ভৌমিক। ১৯২৬৩৪টি ভোট পেয়ে চতুর্থ স্থানে ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী তথা প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সির ভাই সত্যরঞ্জন দাসমুন্সি।

 

লোকসভা ভোটে রায়গঞ্জ আসনে বিজেপি ও তৃণমূলের বিরুদ্ধে বাম ও কংগ্রেসের মধ্যে কে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে তা নিয়ে বেশকিছু দিন থেকেই জল্পনা চলছিল। বাম কংগ্রেস আসন সমঝোতা নিয়েও দীর্ঘসময় ধরে দুই পক্ষের মধ্যে কথাবার্তা চলছিল। তবে সিপিএমের জেতা রায়গঞ্জ ও মুর্শিদাবাদ আসন নিয়ে সমঝোতার বল থমকে দেয় কংগ্রেস। বামেদের দাবী, যে যার নিজেদের জয়ী আসনে লড়াই করবে। তবে এই শর্তে সম্মত ছিল না কংগ্রেস। কংগ্রেসের দাবী, রায়গঞ্জ লোকসভা আসনটি বরাবর কংগ্রেসের শক্তঘাটি বলে পরিচিত। গত লোকসভা নির্বাচনে খুব স্বল্প ভোটের ব্যবধানে কংগ্রেস পরাজিত হলেও এবার কংগ্রেস আরও শক্তিশালী হয়েছে। এবং বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেসকে ঠেকাতে পারবে একমাত্র কংগ্রেসই। ফলে রায়গঞ্জ ও মুর্শিদাবাদ আসন সিপিএমের ঝুলিতে থাকলেও এই দুই আসন ছাড়তে নারাজ কংগ্রেসের জেলা ও রাজ্য নেতৃত্ব। এরই মাঝে বামফ্রন্টের পক্ষ থেকে সাংবাদিক বৈঠক করে রায়গঞ্জ ও মুর্শিদাবাদ আসনে প্রার্থীর নাম ঘোষণা করে দেওয়া হয়। ফলে বাম ও কংগ্রেসের আসন সমঝোতা যে ভেস্তে যেতে বসেছে এই দুই জেলায় তা কার্যত স্পষ্ট।

জেলা কংগ্রেস নেতা পবিত্র চন্দ এদিন স্পষ্ট জানিয়েদেন, সিপিআইএম সাংসদ মহম্মদ সেলিমের সময়কালে জেলায় উন্নয়ন থমকে গিয়েছে। আমরা প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সী ও দীপা দাসমুন্সীর উন্নয়নের কর্মকান্ডকে সামনে রেখেই লোকসভা ভোটে লড়াই করব। এবং এই লড়াই হবে চতুর্মুখী। পবিত্র বাবুর দাবী, খুব তাড়াতাড়ি দিল্লি থেকে রায়গঞ্জ লোকসভা আসনে কংগ্রেস প্রার্থী দীপা দাসমুন্সির নাম ঘোষণা করা হবে।

এদিকে সিপিআইএমের উত্তর দিনাজপুর জেলা সম্পাদক অপূর্ব পাল বলেন, আমরা চেয়েছিলাম তৃণমূল ও বিজেপি বিরোধী ভোট একত্রিত করতে। কিন্তু তার বিরুদ্ধে যদি কেউ থাকে তা দুর্ভাগ্যজনক।

আরও দেখুন

উপনির্বাচনে ব্যাপক উত্তেজনা ইসলামপুরে, আক্রান্ত সংবাদমাধ্যম

    NBlive ইসলামপুরঃ উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ইসলামপুরে। ব্যাপক বোমাবাজির অভিযোগ মাদারিপুর এলাকায়। খবর …