Home > featured > দেড় ফিটের আলপথ কি পারবে কংগ্রেসের ভাগ্য ফেরাতে ? প্রশ্ন কেশবপুরে
দেড় ফিটের আলপথ কি পারবে কংগ্রেসের ভাগ্য ফেরাতে ? প্রশ্ন কেশবপুরে

দেড় ফিটের আলপথ কি পারবে কংগ্রেসের ভাগ্য ফেরাতে ? প্রশ্ন কেশবপুরে

দেড় ফিটের আলপথ কি পারবে কংগ্রেসের ভাগ্য ফেরাতে ? প্রশ্ন কেশবপুরে

Nblive বালুরঘাটঃ পিচ বা ঢালাই তো নয়ই, মাটি দিয়ে সামান্য রাস্তাটুকু হয়নি গ্রামবাসীদের যোগাযোগের প্রয়োজনে। জমির মাঝখান দিয়ে থাকা দেড় ফিট চওড়া আল পথকে এবার ইস্যু করেই কুমারগঞ্জের কেশবপুর গ্রামে ভোট প্রচারে কংগ্রেস। বাম বা বিজেপির দেখা না মিললেও ভোটের আগে ওই এলাকায় শাসক তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গেল এই রাজনৈতিক দলকে। গ্রামে পরিবর্তনের ডাক দিয়ে নিজেদের ভোট ব্যাংক বাড়াতে তৎপরতা তাদের।

দেড় ফিটের আলপথ কি পারবে কংগ্রেসের ভাগ্য ফেরাতে ? প্রশ্ন কেশবপুরে

জানা গেছে, দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার কুমারগঞ্জ ব্লকে রয়েছে দুটি জেলা পরিষদ আসন। এর মধ্যে ৬ নম্বর আসনের অন্তর্গত রামকৃষ্ণপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে রয়েছে কেশবপুর গ্রামটি। প্রায় ৯০০ মানুষের বসবাস থাকা গ্রামটি রয়েছে প্রধান সড়ক থেকে দুই কিলোমিটার ভেতরে। গ্রামটিতে যাবার একমাত্র পথ বলতে জমির আল। চাষের কাজে প্রয়োজনীয় জল আটকাতে মাত্র দেড় ফিট চওড়া এই আলই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গ্রামবাসীদের কাছে। কেননা যোগাযোগের অন্য পথ নেই তাদের।

দেড় ফিটের আলপথ কি পারবে কংগ্রেসের ভাগ্য ফেরাতে ? প্রশ্ন কেশবপুরে

বিগত বাম বোর্ড তো নয়ই, বর্তমান তৃণমূল পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েতও এলাকার মানুষকে উদ্ধার করেনি এই দূরবস্থা থেকে। স্বাভাবিক ভাবেই পরিবর্তনের পর ফের পরিবর্তন চাইছেন এলাকার মানুষ। মানুষের সেই দাবীকে সামনে রেখেই এবার ওই গ্রামে ব্যাপক প্রচারে উদ্যোগী কংগ্রেস। বাম ও তৃণমূলের সেই ব্যর্থতাকে হাতিয়ার করেই এবারের ভোটে বাজিমাত করতে চাইছে কংগ্রেস।

দেড় ফিটের আলপথ কি পারবে কংগ্রেসের ভাগ্য ফেরাতে ? প্রশ্ন কেশবপুরে

স্থানীয় বাসিন্দা রেজিনা খাতুন বলেন, বছরে চার মাস তারা বাড়ি থেকে বেরোতে ভয় পান। বর্ষায় জমিতে জল জমে আলপথটি ডুবে যায়। এর আগে এই রাস্তার সমস্যার কারণেই বিনা চিকিৎসায় এক রোগীর মৃত্যু হয়। তারা বামেদের উপর আস্থা হারিয়ে তৃণমূলকে নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু এই রাজনৈতিক দলটিও ক্ষমতায় বসে তাদের কথা ভাবেনি। ফলে আবার তাদের গ্রামে পরিবর্তনের ডাক উঠেছে।

দেড় ফিটের আলপথ কি পারবে কংগ্রেসের ভাগ্য ফেরাতে ? প্রশ্ন কেশবপুরে

এদিকে নির্বাচনী প্রচারে ওই গ্রামে দিনরাত এক করে পরে থাকা কংগ্রেসের ৬ নম্বর জেলা পরিষদ প্রার্থী বিপ্লব মন্ডল বলেন, কোনো রাজনৈতিক দলের মুখ নেই এই গ্রামে প্রচারে আসে। বিজেপির কোনো প্রভাব নেই এলাকায়। এই এলাকার মানুষ কংগ্রেসকে চাইছে। পাশাপাশি ভরসার মানুষ হিসেবে তাকে নির্বাচিত করবে বলে আশা বিপ্লব বাবুর।

আরও দেখুন

উৎসবে মাতল কংগ্রেস নেতৃত্ব, আতসবাজি রায়গঞ্জে

উৎসবে মাতল কংগ্রেস নেতৃত্ব, আতসবাজি রায়গঞ্জে

  NBlive রায়গঞ্জঃ পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনের ফলাফল এখনও পুরোপুরি সামনে আসেনি। তবে ভোট গণনা যতই …