Home > featured > অম্লতার তুলনায় ক্ষারের পরিমাণ বাড়ছে দক্ষিণ দিনাজপুরের নদীতে
IMG 20180730 WA0004 660x330 - অম্লতার তুলনায় ক্ষারের পরিমাণ বাড়ছে দক্ষিণ দিনাজপুরের নদীতে

অম্লতার তুলনায় ক্ষারের পরিমাণ বাড়ছে দক্ষিণ দিনাজপুরের নদীতে

puspa 300x188 - অম্লতার তুলনায় ক্ষারের পরিমাণ বাড়ছে দক্ষিণ দিনাজপুরের নদীতে

Dhaka 300x188 300x188 - অম্লতার তুলনায় ক্ষারের পরিমাণ বাড়ছে দক্ষিণ দিনাজপুরের নদীতে

NBlive বালুরঘাটঃ গভীরতা সহ প্রকৃতি জানতে গিয়েই উদ্বেগ দেখা দিলো দক্ষিণ দিনাজপুরের নদী নিয়ে। বর্ষায় দুকুল ছাপানো তো দূর, স্বাভাবিক অবস্থা হারিয়ে ফেলেছে সেগুলি। জানাগেছে, নদী বাঁচাও জীবন বাঁচাও কমিটির উদ্যোগে সোমবার দক্ষিণ দিনাজপুরের আত্রেয়ী সহ অনান্য নদীর প্রকৃতি জানার কর্মসূচি নেওয়া হয়। এদিন সকালে প্রথম বংশীহারির টাঙ্গন নদীতে গিয়ে গভীরতা মাপার পাশাপাশি জলের প্রকৃতি মাপা হয়।

 

globotel 1 295x300 - অম্লতার তুলনায় ক্ষারের পরিমাণ বাড়ছে দক্ষিণ দিনাজপুরের নদীতে

এরপর তপন ও গঙ্গারামপুরের উপড় দিয়ে বয়ে যাওয়া ব্রাম্মনী, পূনর্ভবা নদীতে যাওয়া হয়। সেখান থেকে কুমারগঞ্জের ইছামতি হয়ে আত্রেয়ীর প্রকৃতি দেখা হয়। অবশ্য রবিবার সারাদিন হিলির যমুনায় বিএসএফ ও তাদের স্পীড বোর্টে নদীর গভীরতা দেখা হয়। সেখানে উদ্বেগ দেখা দেয় মহারাষ্ট্র থেকে আগত অশোক ভারত, উড়িষ্যা থেকে ডঃ শরৎচন্দ্র পাণ্ডা, পরিবেশপ্রেমী সংস্থা আঙিনা বার্ডস এন্ড এনভায়রনমেন্ট প্রটেকশন সমিতির সম্পাদক বিশ্বজিৎ বসাক সহ অনান্য নদী বিশেষজ্ঞদের মধ্যে।

manasha 300x200 - অম্লতার তুলনায় ক্ষারের পরিমাণ বাড়ছে দক্ষিণ দিনাজপুরের নদীতে

বিশ্বজিৎ বসাক বলেন, জেলার ৬ টি নদীতেই জল নেই। বর্ষায় অথৈই জল থাকার কথা থাকলেও এই নদী গুলোতে কোথাও ৬ আবার কোথাও ৪ ফিট গভীরতা। অম্লতা তো নেই বরং জলে ক্ষারের পরিমান অনেক বেশি। পানের উপযুক্ত জল হতে ৭ পিএইচ দরকার। অথচ জলে ক্ষার রয়েছে ৬ বা ৫ পি এইচ। তারা সব তথ্য যোগার করে জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে সর্বত্র পাঠাবে। যাতে নদী বাধ খুলে দেওয়ার পাশাপাশি গ্লোবাল ওয়ার্মিং রোধ করা হয়। তাঁরা এনিয়ে এক কোটি গাছ লাগানোর পরিকল্পনা নিয়েছেন।

Balaka Nblive 300x188 - অম্লতার তুলনায় ক্ষারের পরিমাণ বাড়ছে দক্ষিণ দিনাজপুরের নদীতে

প্রসঙ্গতত, নদী বাঁচাও জীবন বাঁচাও কমিটির উদ্যোগে শনিবার ও রবিবার বালুরঘাট পুরসভার সুবর্ণতটে কনভেনশন চলে জাতীয় স্তরে। নদী বাঁচাও কর্মসূচিতে হাজির ছিলেন মহারাষ্ট্র থেকে অশোক ভারত, উড়িষ্যা থেকে ডঃ শরৎচন্দ্র পাণ্ডা, উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন পর্ষদের সদস্য বিপ্লব মিত্র, পরিবেশপ্রেমী সংস্থা আঙিনা বার্ডস এন্ড এনভায়রনমেন্ট প্রটেকশন সমিতির সম্পাদক বিশ্বজিৎ বসাক, তপন মজুমদার সহ অন্যান্য বিশিষ্টজন। এদিনের কনভেনশনে জেলার মৃতপ্রায় ৬ টি নদীকে কী ভাবে পুনর্জীবিত করা যায় তা নিয়ে আলোচনা হয়। এরপরেই নদীগুলির গভীরতা ও প্রকৃতি দেখা হয়।

আরও দেখুন

IMG 20190217 WA0002 310x165 - নির্বাচনের আগে বক্তার খোঁজে ডিওয়াইএফআই, চলছে বক্তৃতা আড্ডা পিকনিক

নির্বাচনের আগে বক্তার খোঁজে ডিওয়াইএফআই, চলছে বক্তৃতা আড্ডা পিকনিক

  NBlive রায়গঞ্জঃ লোকসভা ভোটের আগে ভালো বক্তার খোঁজে সিপিআইএমের যুব সংগঠন ডিওয়াইএফআই। বনভোজনকে সামনে …